বিরোধ নিষ্পত্তি

বিরোধ নিষ্পত্তির ৮ টি পদ্ধতিকে বুঝুন

বিরোধ যুক্তরাজ্যের গ্রোসারি ইন্ডাস্ট্রির দৈনন্দিন জীবনের একটি অংশ। ডিস্কাউন্টারদের সংখ্যা বাড়ছে। নতুন দোকান অনেক কষ্টে খুলছে। কর্মচারীরা চাচ্ছে বেতন বাড়ুক। কর্তারা চাচ্ছেন বোনাস। ক্রেতারা তাদের অর্থের পুরো মূল্য আশা করেন। বিরোধ নিষ্পত্তি করা তাই যুক্তরাজ্যের গ্রোসারি ইন্ডাস্ট্রির জীবনে একটি অপরিহার্য অঙ্গ। এই হল বিরোধ নিষ্পত্তির ৮ টি পদ্ধতি – আপনি কি আপনার সমস্ত বিকল্পগুলি সম্পর্কে জানেন?

বিরোধ নিষ্পত্তি

বিরোধ নিষ্পত্তির বিভিন্ন পদ্ধতি

১. বিরোধ নিষ্পত্তি: একতরফা সিদ্ধান্ত

“না, আমরা এক পাও নড়ব না। যা বলেছি তা-ই।” আমরা সকলেই এরকম গল্প শুনেছি যে, একটি বড় ব্র্যান্ড এবং একটি সুপার মার্কেট এমন পর্যায়ে চলে গেছে যে একজন অন্যজন পিছু না হট পর্যন্ত তার পণ্যকে তালিকাচ্যুত করার বা তাকে পণ্য সরবরাহ বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

  • সুবিধা: এটি শক্তি এবং সংকল্প দেখায়।
  • অসুবিধা: অপরপক্ষের কাছে আপনার ধাপ্পা ধরা পড়ে যেতে পারে এবং এটি দীর্ঘমেয়াদী সম্পর্কের জন্য ভাল নয়।

২. বিরোধ নিষ্পত্তি: প্ররোচনা

‘এটি তো কোন ব্যাপারই না, আপনার এটি করাই উচিত।’ কাউকে এমন কিছু করার জন্য প্ররোচিত করা যা তারা করতে নাও চাইতে পারে, নিঃসন্দেহে এমন একটি দক্ষতা যা শেখা যায়। এ বিষয়ে বিশেষজ্ঞদের কিছু সেরা পরামর্শ হল, ১. সক্রিয়ভাবে তাদের মতামত শুনুন, ২. উভয়পক্ষই একমত হতে পারে এমন বিষয় খুঁজে বের করুন, এবং ৩. ‘কারণ’-এর শক্তি ব্যবহার করুন।.

  • সুবিধা: এর কোন খরচ নেই।
  •  অসুবিধা: আপনি যদি প্ররোচনায় মাস্টার না হন এতে সাফল্যের সুযোগ খুবই কম।

৩. বিরোধ নিষ্পত্তি: দরকষাকষি/বিনিময় করা

“না তোমার, না আমার, দুজনের মাঝামাঝি।” আমাদের অনেকই যখন বাজারে যাই তখন দরকষাকষি করি, যেটা সেখানকার রীতি। যুক্তরাজ্যে, আমরা মাঝে মাঝে যখন আমরা কোনো বিষয়ে একমত হতে চাই তখন আমরা দরকষাকষি করি, যদিও আমরা মনে করি আমরা আপস-আলোচনা করছি আসলে আমরা দরকষাকষি করছি।

  • সুবিধা: দরকষাকষি বিরোধ নিষ্পত্তির যথেষ্ট ভাল একটি পদ্ধতি, তবে মনে করবেন না যে এটি আপস-আলোচনা।
  • অসুবিধা: আপনাকে “মাঝামাঝি আসার” ব্যয় বহন করতে হবে।

৪. বিরোধ নিষ্পত্তি: মধ্যস্থতা

“ঠিক আছে, আসুন তাদের মতামত জিজ্ঞাসা করি।” ‘প্রতিযোগিতা এবং মার্কেটস কর্তৃপক্ষ’ জড়িত না হলে আমরা যুক্তরাজ্যের গ্রোসারি ইন্ডাস্ট্রিতে এমন কিছু শুনি না। মাঝেমধ্যে আপনি শুনতে পারেন, “আসুন, আমরা এটিকে অন্য দৃষ্টিভঙ্গি থেকে দেখার চেষ্টা করি।”, যা যুক্তিসংগত।

  • সুবিধা: বিরোধ নিষ্পত্তির একটি কার্যকর পদ্ধতি।
  • অসুবিধা: আপনি হারতে পারেন কারণ এটিতে সম্ভাবনা ৫০:৫০।

৫. বিরোধ নিষ্পত্তি: মুলতবি করা

“আমরা আগামী সভায় এর জন্য একটি পরিকল্পনা নিয়ে আসব।” উদাহরণস্বরূপ, আমরা আমাদের আপস-আলোচনার দক্ষতার প্রশিক্ষণ কোর্সের শিক্ষার্থীদের পর্যবেক্ষণ করে দেখেছি যে, বেশিরভাগ মানুষ বিরোধ সমাধানের চেষ্টার চেয়ে পরবর্তী সভায় সমাধানের পরিকল্পনা উপস্থাপন করার সিদ্ধান্ত নেয়। সাধারণত এটি বিলম্ব করার জন্য করা হয়, দেখা যায় উভয়পক্ষ আবার তাদের মূল যুক্তিগুলিতে ফিরে আসে, তেমন কোনো অগ্রগতি হয় না।

  • সুবিধা: কখনও কখনও মুলতবি করা মানুষকে “ঠান্ডা হওয়ার” এবং/অথবা সমস্যাটিকে অন্য কোনও উপায়ে পর্যালোচনা করার সুযোগ দেয়।
  • অসুবিধা: সমস্যা সমাধানের চেষ্টা থেকে দূরে সরে যাওয়ার জন্য যে মুলতবি ব্যবহার করা হয় তা বিরোধ নিষ্পত্তির জন্য হিতকর নয়।

৬. বিরোধ নিষ্পত্তি: সমস্যার সমাধান

“আমার মাথায় একটা বুদ্ধি এসেছে, কেমন হয় যদি আমরা…?’ বিরোধ নিষ্পত্তির সিংহভাগই ঘটে সমস্যা সমাধানের চেষ্টায়।

  • সুবিধা: পরস্পরের জন্য লাভজনক সমাধান, বিরোধ নিষ্পত্তির এক দারুণ উপায় কারণ সাধারণত উভয়পক্ষই জয়ী হয়।
  • অসুবিধা: আপনি উভয়পক্ষের জন্য একটি উপযুক্ত সমাধান নাও পেতে পারেন এবং এটির জন্য উভয়পক্ষেরই সমস্যা সমাধানের ইচ্ছা থাকতে হবে।

৭. বিরোধ নিষ্পত্তি: সম্পূর্ণ আত্মসমর্পণ

“ঠিক আছে, আমরা চুক্তিতে সম্মতি জানাব।” সম্পূর্ণ আত্মসমর্পণ হয় যখন একপক্ষ হাল ছেড়ে দেয় এবং অন্যপক্ষের দাবি মেনে নেয়।

  • সুবিধা: এই পদ্ধতির সুবিধা সীমিত; অনেক ক্ষেত্রে যা পরবর্তী চুক্তিতে কিছু সুবিধা পাওয়ার আশা হয়ে থেকে যায়।
  • অসুবিধা: আপনি অনেক কিছু হারাতে পারেন।

৮. বিরোধ নিষ্পত্তি: আপস-আলোচনা

“আপনি যদি … তবে আমি …” । এই যন্ত্রটি খুব সহজ এবং যে কোনও আপস-আলোচকের যন্ত্রবাক্সে থাকা আবশ্যক। আপনি যদি আমার জন্য কিছু করেন তবে আমি আপনার জন্য কিছু করব। আমরা আপস-আলোচনাকে বাণিজ্য হিসাবে দেখি। হ্যাঁ, এতে আরও অনেক কিছু আছে। মূলত, এটি ‘কিছু দিয়ে, কিছু পাওয়া’। আপনার যা আছে তার সাথে তাদের যা লাগবে তা বিনিময় করা এবং ফলাফলে উভয় পক্ষের জয় আসা করা।

  •  সুবিধা: উভয়পক্ষই জিততে পারে।
  • অসুবিধা: আপস-আলোচনায় যে ভাল সে বেশি পায়। যার জন্য, আমাদের ‘ক্রেতাদের সাথে আপস-আলোচনা’ মাস্টারক্লাসটি সাহায্য করবে।

কিভাবে আপনার বিরোধ নিষ্পত্তির দক্ষতা বাড়াবেন

আপনি কীভাবে দলের ভিতরের বিরোধ নিয়ন্ত্রণ করবেন? বিরোধ নিষ্পত্তির জন্য কী কী দক্ষতা প্রয়োজনীয়? কর্মক্ষেত্রে কীভাবে বিরোধ নিষ্পত্তির দক্ষতা বাড়ানো যেতে পারে? আশা করি এ পর্যায়ে এসে আপনার মনে হচ্ছে যে আপনি বিরোধ নিষ্পত্তি এখন আরও ভালোভাবে বোঝেন। আর আপনি এই প্রশ্নগুলির কয়েকটির উত্তরও দেওয়া শুরু করেছেন।
আপনার বিরোধ নিষ্পত্তির দক্ষতা আরও বাড়ানোর সবচেয়ে সহজ উপায় হল, বিরোধ নিষ্পত্তির প্রশিক্ষণ সেশনে অংশ নিয়ে এর মূল দক্ষতা এবং আচরণগুলি সম্পর্কে জানা। এটি আপনাকে তাত্ত্বিক মডেলগুলি শ্রেণিকক্ষের ভিতরে বুঝতে সহায়তা করবে। তবে, আপনার এই দক্ষতাগুলো বাস্তবে প্রয়োগ করা তার চেয়েও গুরুত্বপূর্ণ। দলের ক্ষেত্রে, সবাইকে সবার সাথে কথা বলানো এবং তাদের মধ্যে একে অপরের জন্য আস্থা তৈরি করা অত্যাবশ্যক। এটি হতে পারে অফিসিয়াল বৈঠকে, মধ্যাহ্নভোজনে, অফিসের বাইরে কফির আসরে বা দল-গঠনমূলক কর্মসূচির দ্বারা।
উপরের কোন বিকল্পটি আপনি সবচেয়ে বেশি ব্যবহার করেন? অনুগ্রহ করে নীচে মন্তব্য করে আপনার মতামত শেয়ার করুন।
আরও তথ্যের জন্য, আপনি নীচের চিত্রটিতে ক্লিক করে আমাদের আলটিমেট গাইড টু কনফ্লিক্ট রেজল্যুশন স্কিলস পেতে পারেন।

যোগাযোগ করতে দ্বিধা করবেন না। নীচের ফর্মটি পূরণ করলে বা helpme@makingbusinessmatter.co.uk, -তে আমাদেরকে ইমেইল করলেই, আমরা খুশি মনে আরও তথ্যসহকারে আপনার সাথে যোগাযোগ করব।


এই পোস্টের স্লাইডশেয়ার – ড্যারেন এ. স্মিথ -এর বিরোধ নিষ্পত্তির ৮ টি পদ্ধতি

Written By:

You must be logged in to post a comment.

You may also like:

Menu